বুধবার, ২৯ মে ২০২৪
মুক্তিযুদ্ধ মানব জীবনের চলমান সংস্কৃতি। জীবনযুদ্ধ মুক্তিযুদ্ধের একটি অংশ। কোন রাষ্ট্রের অভ্যন্তরে কোন জাতিগোষ্ঠি বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষ দ্বারা কিম্বা রাষ্ট্রের তৈরী আইন, অপ-শাসন, অপসংস্কৃতির মাধ্যমে শোষন-বঞ্চনা, বৈষম্য এবং নির্যাতনের শিকার হয়ে যখন একা একা জীবনযুদ্ধে পরাজিত হতে থাকে তখন মানুষ কোন না কোন রাজনৈতিক তত্ব, দর্শন কিম্বা কর্মকৌশলের মাঝে নিজের নিজেদের মুক্তির স্বপ্ন দেখে এবং মুক্তির পথ খুঁজতে থাকেন। নিজেদের চেতনাকে শানিত করে জ্ঞানসম্মতভাবে দৃঢ় প্রতিজ্ঞা ও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হন। এভাবে একে একে মানুষ মুক্তির অন্বেষায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন সংগ্রামে লিপ্ত হন। এ ধরনের ঐক্য তৈরি হয় মানুষের কল্যাণে মানবের মুক্তির লক্ষ্যে সৎ আদর্শবান ও বিবেক সম্পন্ন ত্যাগী মানুষদের নেতৃত্বে গড়ে ওঠা ধারাবাহিক রাজনৈতিক কর্মসূচী আবর্তে। মানবের মুক্তির জন্য নিয়মতান্ত্রিক যে ধারাবাহিক সংগ্রাম হয়, তাকে বলা যায়- মুক্তির সংগ্রাম। জনগণের নিয়মতান্ত্রিক মুক্তির সংগ্রাম যখন ব্যার্থ হয় তখন সংঘবদ্ধ মানুষ মুক্তির জন্য অনিয়মতান্ত্রীক পথে স্বশস্ত্র যুদ্ধে লিপ্ত হয়। সেটি কখনো কখনো গণতান্ত্রীক অথবা সমাজতান্ত্রীক সাম্যের শাসন ব্যবস্থার লক্ষ্য বাস্তবায়নের যাত্রাপথের রূপ লাভ করতে পারে। আবার ব্যার্থও হতে পারে। কোন ধরনের সংস্কৃতির ধারক বাহক রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বে জনগণের ঐক্য প্রতিষ্ঠা কিম্বা আন্দোলন সংগ্রাম পরবর্তী মুক্তিযুদ্ধ সংগঠিত হচ্ছে বা হয়েছিল তার ওপর নির্ভর করে। তৎকালীন পাকিস্তানের শাসক গোষ্ঠির শোষন বঞ্চনা, বৈষম্য ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে বাংগালি জাতীয়তাবাদী চেতনার উন্মেষ ঘটার মধ্যদিয়ে ২৩ বছরের পাকিস্তানের ভিন্ন ভাষাভাষি মানুষের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা এবং পাকিস্তান নামক রাষ্ট্রের ঐক্য সংহতির ধারাবাহিকতায় বাংগালির মুক্তিসংগ্রাম শেষ হয়েছিল ১৯৭০ সালের পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত সাধারন নির্বাচনে আওয়ামীলীগের একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভের মধ্য দিয়ে। রাজনৈতিক দল হিসেবে সাধারন নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন আওয়ামীলীগ একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা লাভ করলেও পাকিস্তানের শাসক গোষ্টি আওয়ামীলীগের হাতে রাষ্ট্র ক্ষমতা অর্পন করেনি। সে কারনে বাংগালির মুক্তিসংগ্রাম অবশেষে স্বশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে রুপান্তরিত হয়। নয় মাসের রক্তক্ষয়ি যুদ্ধের মধ্যদিয়ে ৩০ লাখ মানুষের জীবনদান ও ২ লাখ মা বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের স্বশস্ত্র যুদ্ধে অংশগ্রহন তাঁদের রক্তে ও ত্যাগের বিনিময়ে পাকিস্থানী হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় অর্জনের মদ্যদিয়ে বাংগালি জাতী স্বাধীনত্বা ও স্বতন্ত্র পতাকার উত্তরাধিকারী হন। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখ ও পরিতাপের বিষয় এই যে, এতো বড় একটি রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও স্বাধীন বাংলাদেশের রচিত সংবিধানে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দেশটি স্বাধীন হয়েছে-এমন কথা সংবিধানের কোথাও লেখা নেই। মোটকথা মুক্তিযুদ্ধ মুক্তিযোদ্ধা শব্দ দু'টি সংবিধানে অনুপুস্থিত। এখন প্রশ্ন জাগে-তাহলে মুক্তিযোদ্ধা,শহীদ, বীর শ্রেষ্ঠ, বীর বিক্রম, বীর প্রতিকেরা এলন কোথা থেকে? তাহলে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধটি কি ষোল আনাই মিছে? মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার প্রধান সম্পাদক, শাহজাদপুর সংবাদ ডটকম তারিখ-২৪ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ, ১০ পৌষ- ১৪২৫ বঙ্গাব্দ। সোমবার, বিকেল - ০৪ টা ৩৫ মিনিট

সম্পর্কিত সংবাদ

মাদকের অন্ধকার থেকে ৫ যুবকের  আলোর জীবনে পদার্পণ

স্বাস্থ্য

মাদকের অন্ধকার থেকে ৫ যুবকের আলোর জীবনে পদার্পণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, শাহজাদপুর : ‘মাদক যখন সেবন করেছি, তখন মানুষ খুন করা ছাড়া এমন কোন অপরাধ নাই যা করতো নূন্যতম দ্বিধাবোধ ক...

শাহজাদপুরে মানহীন ২০ বোতল পানি ধ্বংশ

অপরাধ

শাহজাদপুরে মানহীন ২০ বোতল পানি ধ্বংশ

শাহজাদপুর প্রতিনিধি : গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকালমঙ্গলবার দুপুরে শাহজাদপুর পৌর এলাকার দ্বারিয়াপুর বাজার এলাকা থেকে ২০ বো...

শাহজাদপুরের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী মানিক গ্রেফতার

অপরাধ

শাহজাদপুরের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী মানিক গ্রেফতার

শামছুর রহমান শিশির : শাহজাদপুরের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী, ৪ বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী ও প্রায় এক ডজন মাদক মামলার প্র...

সিরাজগঞ্জে পৃথক বজ্রপাতে কলেজ ছাত্র ও পিতা-পুত্র সহ ৫ জন নিহত ও ২ জন আহত

সিরাজগঞ্জ জেলার সংবাদ

সিরাজগঞ্জে পৃথক বজ্রপাতে কলেজ ছাত্র ও পিতা-পুত্র সহ ৫ জন নিহত ও ২ জন আহত

মোঃ মুমীদুজ্জামান জাহান,সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর, কাজিপুর ও কামারখন্দ উপজেলায় বজ্রপাতে দুই কলেজ ছাত্র,...

বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে ধস- সিরাজগঞ্জে ৩৫ গ্রাম প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা

সিরাজগঞ্জ জেলার সংবাদ

বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে ধস- সিরাজগঞ্জে ৩৫ গ্রাম প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার রতনকান্দি ইউনিয়নের বাহুকা এলাকায় বাঁধ ধসে লোকালয়ে প্রবেশ করতে শু...

আবার জোড়া গোল মেসির, মায়ামির পর এবার শীর্ষে তুললেন নিজেকে

খেলাধুলা

আবার জোড়া গোল মেসির, মায়ামির পর এবার শীর্ষে তুললেন নিজেকে

জিলেট স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরুটা অবশ্য ইন্টার মায়ামির পক্ষে ছিল না। প্রায় ৬৬ হাজার দর্শকের সামনে স্বাগতিক নিউ ইংল্যান্ড ম...